শিরোনাম :
সাগরে মাছ নেই হতাশ জেলেরা কলাপাড়ার ডালবুগঞ্জে তিন প্রতিবন্ধী ও দুই বিধবা পেলো প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর কুষ্টিয়া জেলা ইউনাইটেড অনলাইন প্রেসক্লাবের জরুরি সভা অনুষ্ঠিত মৌলভীবাজার শ্রীমঙ্গলে করোনায় মৃত্যুঃ দাফন-কাফনে ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশন শ্রীমঙ্গল গরীব অসহায়দের মাঝে খাদ্যদ্রব্য বিতরণে প্রশংসনীয় পদক্ষেপ নিলেন পুলিশ সুপার মোঃ নাইমুল হক ঠাকুরগাঁওয়ে পুত্রবধূর আঘাতে শাশুড়ির মৃত্যু ঠাকুরগাঁও সদর পৌরসভার স্থগিত হওয়া ওয়ার্ডটিতে ভোট গ্রহণ চলছে কলাপাড়ার ধুলাসারে বিষপান করে ১ শ্রমিকের মৃত্যু। খানসামায় গণহত্যা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত মিরপুর প্রেসক্লাবের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন সভাপতি চঞ্চল মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক জহিরুল রাজশাহী মহানগরে ভূয়া (MLM) কোম্পানীর প্রতারনা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার ০৪ প্রতারক বন্দীদশা হতে উদ্ধার-৩৭ জন করোনার ২য় ঢেউ মোকাবেলায় সর্বত্র সতর্কাবস্থা গ্রহণে তৎপর মহিপুর থানা পুলিশ মির্জাপুর ইউনিয়ন ০৯নং ওয়ার্ডে নির্বাচন আলোচনা সভা রাজশাহী মেট্রপলিটন পুলিশ ভাইরাস ঠেকাতে মাঠে নামছে ধর্মপাশার সুখাইড় রাজাপুর উত্তর ইউনিয়নে স্বেচ্ছাসেবকলীগ আহবায়ক কমিটি অনুমোদিত সমাজ সেবায় কাউন্সিলর আমজাদ হোসেন শেরে বাংলা পদক পেলেন কুয়াকাটা সৈকতে বালু ভাস্কর্য প্রদর্শনীর উদ্বোধন করলেন ডিআইজি কুয়াকাটায় বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে মুসলিম এইডের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত চিতলমারী বাজার ব্যবসা ব্যবস্থাপনা কমিটির আয়োজনে জাতির পিতার ১০১ তম জন্মশতবার্ষিকী পালন ৩৩৩ নম্বরে ফোন করে চাইলেন সহযোগিতা হাত বাড়িয়ে দিলেন কলাপাড়া’র ইউএনও কলাপাড়াকে জেলার দাবীতে মানববন্ধন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ খুকনি ইউনিয়ন শাখার ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন ২০২১ রানীশংকৈলে ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন উপলক্ষে আলোচনা সভা কালীগঞ্জে নজরুল মাষ্টারের বিরুদ্ধে সরকারী গাছ কর্তন সহ বিভিন্ন অভিযোগ কলাপাড়ায় জিএনবি’র উদ্যোগে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদযাপন মহিপুর থানা পুলিশ ও কুয়াকাটা পৌরসভায় উন্নয়নশীল দেশে উত্তরনে কলাপাড়া থানা পুলিশের আনন্দ উদযাপন মিশ্রিপাড়ায় সীমা বৌদ্ধ বিহারের জমি দখলমুক্ত করতে রাখাইনদের মানববন্ধন মিশ্রিপাড়ায় সীমা বৌদ্ধ বিহারের জমি দখলমুক্ত করতে রাখাইনদের মানববন্ধন সাভার বাসস্ট্যান্ডে হিজড়া হকার সংঘর্ষ আহত – ১০ ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ঢেউটিন বিতরণ করলেন- দুলাল রব্বানী আজীবন মানুষের কল্যানে কাজ করে যাবো- পলক পটুয়াখালী জেলার মহিপুর থানার একটি মাদক বিরোধী সাঁড়াশি অভিযান আটক ০১ কলাপাড়ায় ভুট্টা চাষে বাম্পার ফলন: কৃষকের মুখে হাসি কালের সাক্ষী শিব মন্দিরের বটবৃক্ষ সিঙ্গাপুরের তুয়াস নিহতদের জন্য লক্ষ্যমাত্রা ৩ লক্ষ হলেও অনুদানে জমা হয়েছে ৬ লক্ষ ৪ হাজার সিংগাপুর ডলারের উপরে রাজধানী বিভিন্ন জায়গায় বিদ্যুৎ চুরি করে অটোরিকশায় চার্জ। ঢাকার দোহারে ট্রাকের ধাক্কায় নিহত ১ কলাপাড়ার ডালবুগঞ্জ উপ-নির্বাচনে আ’লীগ মনোনীত প্রার্থী বিজয়ী রাত পোহালে ডালবুগঞ্জ ইউপি উপ-নির্বাচন ভোট কেন্দ্রে পুলিশি টহল কলাপাড়ার ডালবুগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচন; চলছে শেষ মুহূর্তের প্রচার প্রচারণা নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী অফিস ও বাসায় ভাঙ্গচুর আমি শেষ বয়সে ডালবুগঞ্জ ইউনিয়ন বাসীর পাশে থাকতে চাই, অধ্যক্ষ দেলওয়ার হোসেন শিকদার কলাপাড়ায় নব-নির্বাচিত মেয়রকে সংবর্ধনা রাজশাহী মহানগরীতে গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে লাশ বহনকারী গাড়ীর চাঁদাবাজ দালাল চক্রের সদস্য গ্রেফতার জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি), কর্তৃক ৭০০ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেটসহ আটক- ০১ কেশবপুর পৌর নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠ ভাবে সম্পন্ন হবে-সিইসি পাবনার চাটমোহরে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর দেওয়ার আশ্বাসে ইউপি চেয়ারম্যানের অর্থ আদায়ের অভিযোগ ভালুকায় মোটরসাইকেল ও যাত্রিবাহী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ২ জন নিহত সাংবাদিক বোরহান হত্যার প্রতিবাদে কু্ষ্টিয়া প্রেসক্লাব কেপিসি’র সমাবেশ ও বিক্ষোভে শেখ হাসিনা সরকারের ক্ষমতার আমলে দেশে ক্রীড়া ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে- এমপি শাওন ভ্রমণ পিপাসুদের অন্যতম আকর্ষণের জায়গা কুয়াকাটার সমুদ্র সৈকত মহিপুর প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত কলাপাড়ায় করোনা টিকার ফ্রি রেজিষ্ট্রেশন করছে রয়েল ব্যাচ ২০০০ কলাপাড়া পৌরসভার নির্বাচনে নৌকা ৪১৪ ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন বিপুল চন্দ্র হাওলাদার, পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া পৌরসভায় আজ ভোটারদের ব্যাপক উপস্থিতিতে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ খাদ্যপণ্যসহ চালের মূল্য বৃদ্ধিতে বঙ্গবন্ধু পেশাজীবী পরিষদের উদ্বেগ প্রকাশ আজ ১৪ ফেব্রুয়ারি, ভ্যালেন্টাইনস ডে বা ভালোবাসা দিবস। দোহারে বিডি ক্লিন ও ব্লাড ব্যাংকের ব্যতিক্রমী অনুষ্ঠান। কলাপাড়া নির্বাচন উপলক্ষে পটুয়াখালী জেলা পুলিশের ব্রিফিং ভোট কেন্দ্রে সাংবাদিক নির্যাতন-হয়রাণীকে না বলুন রাজশাহী কর ভবনে বঙ্গবন্ধু কর্ণার ও লাইব্রেরীর উদ্বোধন আরেকটি রাজশাহী বাসীর সবার জন্য সৌন্দর্য যোগ হলো সড়ক বাতি সাতক্ষীরা পৌর নির্বাচনে জুম্মার নামাজান্তে নৌকায় ভোট চাইলেন আসাদুজ্জামান বাবু শাহজাদপুরে ১,শ ৫০জন দুস্হ পরিবারের মাঝে কাপড় ও চাদর বিতরণ করলেন প্রফেসর মেরিনা জাহান কবিতা সাতক্ষীরা পৌর নির্বাচনে নৌকা প্রতীককে বিজয়ী করতে সৈয়দ আমিনুর রহমান বাবু’র নেতৃত্বে গণসংযোগ বরগুনায় পুলিশ সুপার ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট লালমোহনে প্রতিপক্ষের হামলার ঘটনায় মামলা, গ্রেফতার-৯ মঠবাড়িয়ায় গাঁজা ও ইয়াবা সেবনকারী ৩ যুবক আটক সাতক্ষীরা জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে পৌর নির্বাচনের ৩৭ টি ভোট কেন্দ্র পরিদর্শন শীতার্থদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরণ করলেন চাটখিল উপজেলা প্রেসক্লাব মঠবাড়িয়ায় টিকিকাটা সাঈফী নগর মাদ্রাসায় অভিভাবক সমাবেশ মাদক বিরোধী অভিযান চলছে জেলা পুলিশ যশোরের মাদক বিরোধী বিশেষ অভিযান চলমান। আইন শৃঙ্খলা সক্ষমতা বাড়া‌তে বাংলাদেশ পুলিশে যুক্ত হচ্ছে দুটি অত্যাধুনিক হেলিকপ্টার সাতক্ষীরায় নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করতে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করলেন কাউন্সিলর প্রার্থী রেজাউল সপ্না হত্যার বিচার চাই সপ্নার পরিবার বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৪৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত চৌহালীর উপজেলার চেয়ারম্যানের করোনার ভ্যাকসিনের টিকা নেওয়ার অভিনয় ভাইরাল। বরগুনায় স্বামীকে খুন, ৮ মাস পর হত্যারহস্য উদঘাটন,স্ত্রী ও পরকীয়া প্রেমিক গ্রেফতার জামালপুর পৌর নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের বিজয় নিশ্চিত করার লক্ষে যুবলীগের যৌথ কর্মী সভা অনুষ্ঠিত লালমোহনে শিশু বিয়ের কারণ, প্রভাব ও প্রতিকার নিয়ে এ্যাডভোকেসি সভা রাঙামাটির সাজেক সড়কে দুই মাহিন্দ্র গাড়ির মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত ৯ পটুয়াখালীর দুমকি লুথান হসপিটালের পরিচালক ও তার ৩ সহকারীর বিরুদ্ধে ৩ দিনের মানব বন্ধন কমলগঞ্জে শিশু নির্যাতনের ঘটনায় মসজিদের ইমাম আটক ঠাকুরগাঁওয়ে এক সপ্তাহ গরুর হাট বন্ধ সাংবাদিকদের ৪৫ শতাংশ মহার্ঘভাতা আইন চূড়ান্ত স্বাস্থ্যমন্ত্রী ‘দুর্নীতির সুপারমডেল বললেন সংসদ জি এম সিরাজ জেন্ডার সংবেদনশীল সাংবাদিকতা বিষয়ক আলোচনা সভা টেকনাফে পাবনার চাটমোহর হরিপুর বাজারে সিসি টিভি ক্যামেরার শুভ উদ্বোধন ত্ব-হা আদনানের নিখোঁজের ক্লু খুঁজে বের করবো বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নারায়ণগঞ্জ বন্দরে গৃহবধূকে অপহরণের পর পাঁচদিন আটকে রেখে গণধর্ষণের অভিযোগে ধর্ষক গুড্ডু গ্রেপ্তার

একটি টানেল – আনোয়ারাবাসীর স্বপ্ন, দক্ষিণ চট্টগ্রামের বহুল সম্ভাবনার দুয়ার

প্রতিবেদক স্টাফ রিপোর্টার আবুল কাশেম
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৮ মে, ২০২১

কর্ণফুলী টানেল কি ?

বাংলাদেশের বন্দরনগরী চট্টগ্রামকে চীনের সাংহাই শহরের আদলে ওয়ান সিটি টু টাউন করার পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে। বিশাল পরিকল্পনার অংশ হিসেবে চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীতে দেশের ইতিহাসে প্রথম টানেল নির্মাণাধীন রয়েছে। এই টানেল চট্টগ্রাম নগরীর মূল শহরের সঙ্গে কর্ণফুলী নদীর অপর পার আনোয়ারা উপজেলাকে সরাসরি যুক্ত করবে এবং দুপারে নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ নিশ্চিত করবে। আর এই টানেল ঘিরে পিছিয়ে থাকা আনোয়ারা এলাকায় শিল্পায়নে বিপ্লব হবে। বর্তমানে আনোয়ারা প্রান্তে চীনা অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং কোরিয়ান ইপিজেড ঘিরে বিশাল বিনিয়োগ হবে।

অবকাঠামো –

পতেঙ্গা ও আনোয়ারায় কর্ণফুলী নদীর তলদেশে সড়ক নির্মাণের কাজ চলছে পুরোদমে। মূল টানেল ২টি টিউব সম্বলিত ও ৩.৪ কি.মি: দীর্ঘ ৪ লেনের টানেল। পাশাপাশি টানেলের পশ্চিম ও পূর্ব প্রান্তে ৫.৩৫ কি:মি: এপ্রোচ রোড এবং ৭২৭ মিটার ওভার ব্রিজ (Viaduct) ও নির্মাণাধীন রয়েছে।

কাজের অগ্রগতি –

সর্বশেষ কাজের অগ্রগতি সম্পর্কে যদি বলি তাহলে পুরো টানেল প্রকল্পের অগ্রগতি হয়েছে ৬৫%। এছাড়া আনোয়ারা প্রান্তে ৭২৭ মিটার ভায়াডাক্ট নির্মাণের অগ্রগতি প্রায় ৫৫ শতাংশ। এর মধ্যে ১২১টি কাস্ট ইন সিটু বোরড পাইল, ১০৩টি কংক্রিট পিয়ার ও ৪৬টি কলার বিমের শতভাগ কাজ, ৪৬টি পিয়ার ক্যাপের মধ্যে ৪৬টির শতভাগ কাজ এবং ২০৩টি প্রি-ফেব্রিকেটেড বক্স গার্ডারের মধ্যে ১২২টির ৫৮ দশমিক ৬২ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। টানেলের জন্য ১৯ হাজার ৬১৬টি সেগমেন্টের নির্মাণ কাজ চলছে চীনের জিনজিয়াং শহরে। অলরেডি প্রায় সব সেগমেন্টের নির্মাণ ও শেষ হয়েছে। যার মধ্যে ১৫ হাজার ৭৮৪টি সেগমেন্ট প্রকল্প এলাকায় পৌঁছেছে এবং নয় হাজার ৭৮৪+ সেগমেন্ট টানেলের অভ্যন্তরে স্থাপন করা হয়েছে।

প্রকল্প বাজেট –

কর্ণফুলী টানেল প্রকল্পটি বাংলাদেশ ও চীন সরকারের (জি টু জি) যৌথ অর্থায়নে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রকল্পটির মোট ব্যয় ১০ হাজার ৩৭৪ কোটি ৪২ লাখ টাকা। এর মধ্যে বাংলাদেশ সরকার দিচ্ছে চার হাজার ৪৬১ কোটি ২৩ লাখ টাকা আর চীন সরকারের ঋণ পাঁচ হাজার ৯১৩ কোটি ১৯ লাখ টাকা। China Communications Construction Company CCCC মূল ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে কর্ণফুলী টানেল বাস্তবায়ন করতেছে

কিভাবে টানেলটি আনোয়ারাবাসীর স্বপ্ন ও দক্ষিণ চট্টগ্রামের উন্নয়ন করবে –

চট্টগ্রাম শহরের আয়তন ১৬৮ বর্গকিলোমিটার। ভারী ও মাঝারি শিল্প-কারখানার আবাস্থল চট্টগ্রাম । এখানে দেশের প্রথম ইপিজেডসহ আছে বেশকটি শিল্পাঞ্চল। চট্টগ্রাম শহর কর্ণফুলী নদীর উত্তরপাড়ে অবস্থিত। কর্ণফুলী নদীর দক্ষিণপাড়ে রয়েছে পাহাড়ি ভূমি, এর ভেতর রয়েছে কোরিয়ান ইপিজেড, ২ টি সারকারখানা এর পাশাপাশি বিচ্ছিন্নভাবে কিছু শিল্প-কারখানা গড়ে উঠেছে।আরো নির্মাণাধীন রয়েছে “চায়নিজ ইন্ডাস্ট্রিয়েল এন্ড ইকোনমিক জোন। বলতে গেলে কর্ণফুলী নদীর উত্তরপাড়ে শহর, দক্ষিণপাড়ে পাহাড়-জঙ্গল!!! কিন্ত পাহাড় জঙ্গল সাবাড় করে গড়ে উঠেছে অনেক ভারি শিল্পকারখানা যা চট্টগ্রাম শহরের অন্তর্ভুক্ত নই! কেন নই? কারন দক্ষিণ চট্টগ্রামের ঐ অংশে যেতে হলে ২০/২৫ কিলোমিটার ঘুরে যেতে হয়। অথচ দুই প্রান্তের দুরত্ব মাত্র ২/১ কিলোমিটার!! কিন্ত নদীর মোহনায় কোন সংযোগ না থাকায় শহর থেকে বিচ্ছিন্ন ছিল ভারি শিল্পকারখানা অধ্যুষিত নদীর দক্ষিণ পাড়। কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ হয়ে গেলে চট্টগ্রাম শহরের অন্তর্ভুক্ত হবে বিরাট একটা ভারি শিল্পকারখানা বেষ্টিত জায়গা, আয়তনে এই জায়গা সিলেট শহরের চেয়ে ও বড় হবে!! ভবিষ্যতে ঢাকার মতো গঠন করা হতে পারে “চট্টগ্রাম দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন”! কোরিয়ার এক্সপোর্ট প্রসেসিং জোন বা কোরিয়ান ইপিজেট, “চায়নিজ ইন্ডাস্ট্রিয়েল এন্ড ইকোনমিক জোন, সার কারখানা সহ বিচ্ছিন্নভাবে গড়ে উঠা বেশ কিছু ভারি-মাঝারি শিল্প-কারখানার অসীম সম্ভাবনার হাতছানি দিচ্ছে কর্ণফুলী টানেল। একমাত্র একটি টানেলের জন্য এখনো নদীর দক্ষিণ পাড়ে চট্টগ্রাম শহর বর্ধন করা যায় নি

কেন টানেল নিমাণ –

বর্তমানে কর্ণফুলী নদীর ওপর ২/৩ টি ব্রিজ আছে। এ ব্রিজ গুলো দিয়ে চট্টগ্রামের দক্ষিণ অংশের সঙ্গে মূল শহরের কোনো সংযোগ নেই। অনেকে বলে কর্ণফুলী নদীর উপর তো সুন্দর একটা ব্রীজ (শাহ আমানত সেতু) আছে তবু ও কেন এত টাকা ব্যয়ে টানেল নির্মাণ করা হচ্ছে? আবার অনেকে বলে টানেলের পরিবর্তে ঐ জায়গায় ব্রীজ কেন করা হয় নি কেন? প্রথমটার উত্তর হল কর্ণফুলী নদীর দক্ষিণপাড়ে যেখানে ভারি-মাঝারি শিল্পকারখানা রয়েছে, এই জায়গা থেকে শাহ আমানত সেতুর দুরত্ব ১৭+ কিলোমিটার। আর সেতু দিয়ে ঘুরে বন্দরের দুরত্ব দাড়াবে ২০/২৫ কিলোমিটার। অথচ আনোয়ারা থেকে বন্দরের সুজাসুজি দুরত্ব মাত্র ২/১ কিলোমিটার!! এত কিলোমিটার ঘুরে দক্ষিণপাড়ে তৈরি পণ্য বন্দরে আনা-নেওয়া ব্যয়বহুল। তাছাড়া এত কিলোমিটার ঘুরে এসে দক্ষিণপাড়ে শিল্পকারখানা স্থাপন করা ও কষ্টসাধ্য ব্যপার। মূল শহরের সাথেও যুক্ত বরা যাচ্ছে না ডিরেক্ট যোগাযোগ না থাকার কারনে।
আবার অনেকে বলে টানেলের পরিবর্তে ঐ জায়গায় ব্রীজ কেন করা হয় নি কেন? এই প্রশ্নকারিদের আগে চট্টগ্রাম শহর ও ম্যাপ সম্পকে জানা দরকার। যে স্থানে টানেল নির্মাণ করা হচ্ছে সেটা হল কর্ণফুলী নদীর মোহনা!! আর কর্ণফুলী নদীর মোহনা মানে চট্টগ্রাম বন্দরের চ্যানেলের প্রবেশমুখ। চ্যানেলের প্রবেশমুখে ব্রীজ নির্মাণ করলে বন্দরের বড় বড় জাহাজ গুলো কিভাবে প্রবেশ করবে?? আর সেতু যদি বিশাল উচ্চতা বিশিষ্ঠও নির্মাণ করা হলে বন্দর চ্যানেলে পলি জমে বন্দর অচল হয়ে যাবে। অর্থাৎ ব্রীজ নির্মাণ কিছুতেই সম্ভব নই। তাই কর্ণফুলী টানেল নিমাণ করা হচ্ছে।

টানেল নির্মাণের ফলে কি কি উন্নয়ন হবে –

– চট্টগ্রাম শহরে নিরবচ্ছিন্ন ও যুগোপোযুগী সড়ক যোগাযোগ ব্যাবস্থা গড়ে তোলা এবং বিদ্যমান সড়ক যোগাযোগ ব্যাবস্থার আধুনিকায়ন হবে। চীনের সাংহাই শহরের ন্যয় চট্রগ্রাম শহরকে “One City Two Town” মডেল এ গড়ে উঠবে।

– কর্ণফুলী নদীর পূর্ব তীর ঘেঁষে গড়ে ওঠা শহরের সাথে ডাউন টাউনকে যুক্ত করা এবং উন্নয়ন কাজ ত্বরান্বিত হবে।

– চট্টগ্রাম পোর্টের বিদ্যমান সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি এবং নির্মাণাধীন মাতারবাড়ি গভীর সমুদ্র বন্দরের সাথে সহজে কানেক্ট হবে চট্টগ্রাম বন্দর। দক্ষিণ প্রান্তের শিল্প-কারখানার কাঁচামাল ও প্রস্তুত মালামাল চট্টগ্রাম বন্দর, বিমানবন্দর ও দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে পরিবহন সহজ হবে।

– ঢাকা থেকে কক্সবাজার যেতে ৫০ কিলোমিটার দূরত্ব কমে আসবে এবং চট্টগ্রাম দক্ষিণের লোকজন টানেলটি ব্যবহার করে সহজে চট্টগ্রাম শহরে আসা সহজ হবে।

– ঢাকা-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার এর মধ্যে নতুন একটি সড়ক যোগাযোগ ব্যাবস্থা গড়ে উঠবে। প্রস্তাবিত মিরসরাই-টেকনাফ মেরিনড্রাইভ সড়কের গুরুত্বপূর্ণ কানেক্টর হবে। এবং এশিয়ান হাইওয়ের সাথে সংযোগ স্থাপন হবে।

– সার্বিকভাবে যোগাযোগ ব্যবস্থার সহজিকরণ, আধুনিকায়ন, শিল্পকারখানার বিকাশ সাধন এবং পর্যটন শিল্পের উন্নয়নের ফলে কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ প্রকল্প নির্মিত হলে বেকারত্ব দূরীকরণসহ দেশের অর্থনৈতিকউন্নয়নে ব্যাপক প্রভাব ফেলবে।

– দক্ষিণপাড়ে শিল্প-কারখানার বিকাশ সাধন এবং পর্যটন শিল্পের উন্নয়নের মাধ্যমে কর্ণফুলী টানেল বেকারত্ব দূরীকরণসহ দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ব্যাপক প্রভাব ফেলবে। ভ্রমণের সময় ও খরচ হ্রাস পাবে এবং কর্ণফুলী নদীর দক্ষিণপ্রান্তের সঙ্গে সহজ যোগাযোগ ব্যবস্থা স্থাপনের ফলে পূর্বপ্রান্তে পর্যটন শিল্প বিকশিত হবে।

– ফিন্যান্সিয়াল এবং ইকোনমিক আইআরআর-এর পরিমাণ দাঁড়াবে যথাক্রমে ৬.১৯ শতাংশ ও ১২.৪৯ শতাংশ। এছাড়া ফিন্যান্সিয়াল ও ইকোনমিক ‘বেনিফিট কস্ট রেশিও’র (বিসিআর) পরিমাণ দাঁড়াবে যথাক্রমে ১.০৫ ও ১.৫০ শতাংশ। ফলে কর্ণফুলী টানেল জিডিপিতে ব্যাপক ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

তথ্য বিভিন্ন ব্যক্তি ও মাধ্যম থেকে সংগৃহীত , ছবি –

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs