সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:১০ অপরাহ্ন
ঘোষনা
সিরাজগঞ্জে বিশ্ব নদী দিবস উদযাপন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত  গাজীপুরের শ্রীপুরে বিচারের দাবিতে ছেলের লাশ নিয়ে থানায় বাবা দুর্গোৎসব উপলক্ষে বিসর্জন ঘাট পরিদর্শনে মসিক মেয়র মোঃ ইকরামুল হক টিটু।  আসন্ন সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে। দলিল লেখকের মরদেহ উদ্ধার, স্ত্রী আটক বাড়ি থেকে দলিল লেখকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।   রাজশাহীতে সাংবাদিকের ওপর হামলাকারীদের গ্রেপ্তার সহ শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ বগুড়ায় ইয়াবাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। দুর্গাপুর কলমাকান্দা -১ আসনের সাবেক এমপি জালাল উদ্দিন তালুকদারের ১০ম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত নওগাঁতে ৯৫ ভাগ বিয়ে হয় যৌতুকের বিনিময়।  কারিগরি শিক্ষা থাকলে বেকার থাকার কোন ভয় থাকে না – এমপি শাওন

কালভার্ট ভেঙে খালে রাস্তার বেহাল দশা দুর্ভোগে স্কুল-কলেজ-মাদরাসার শিক্ষার্থীরা

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ‌
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১১ মে, ২০২২
  • ৫০ বার পঠিত

পটুয়াখালীর কলাপাড়ার মহিপুর থানা এলাকার ৭নং লতাচাপলী ইউনিয়নের, পাঁচটি স্কুল ও মাদরাসা শিক্ষার্থীদের এবং ছয়টি গ্রামের মানুষের চলাচলের একমাত্র রাস্তার মাঝে থাকা কালভার্টটি ভেঙে খালে পড়ে যায় গত ২৮ সেপ্টেম্বর রাতে হঠাৎ করেই কালভার্টটি ভেঙে খালে পড়ে যায়। এরপর থেকেই এই কালভার্টটি এলাকার মানুষের জন্য হয়ে উঠেছে চরম দুর্ভোগের কারণ।

জানা যায় ৭নং লতাচাপলী ইউনিয়নের আলীপুর ও কুয়াকাটার পর্যটন কেন্দ্র বিকল্প সড়ক হিসেবে পরিচিত দিয়ার আমখোলা গ্রামের এই রাস্তাটি বর্ষা মৌসুমে বেহাল অবস্থা হয়ে পরে এলাকার প্রায় ছয় হাজার মানুষ ও কুয়াকাটা খানাবাদ ডিগ্রি কলেজ, মুসুল্লীয়াবাদ ইসলামিয়া ফাযিল (ডিগ্রি) মাদরাসা, মুসুল্লীয়াবাদ এ কে মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পশ্চিম দিয়ার আমখোলা প্রাথমিক বিদ্যালয় ও একটি নূরানি মাদরাসার প্রায় দুইশ শিক্ষার্থী প্রতিদিন এই পথে চলাচল করছে ঝুঁকি নিয়ে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, খানাবাদ কলেজ থেকে মুসুল্লিয়াবাদ মাদরাসা পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার রাস্তা কাঁচা, বর্ষা মৌসুমে এই রাস্তা দিয়ে চলাফেরা করাই খুবই কষ্টকর হয়ে পরে।

ইতি মধ্যে আবার কালভার্টটি ভেঙে যাওয়ায় স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা লেখাপড়া বন্ধের উপক্রম হয়েছে।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, তারা বর্ষাকালে এই রাস্তায় কাঁদা হওয়ার কারণে ঠিকমতো স্কুলে যেতে পারে না। কালভার্ট ভাঙার কারণে অনেককে পারাপার করাতে কষ্টকর হয়। দ্রুত এই কালভার্টটি ও রাস্তাটি পাকা করার বিশেষ ভাবে অনুরোধ জানান তারা ।

যোগাযোগের একমাত্র কাঁচা রাস্তাটি বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। এক পশলা বৃষ্টি হলেই কর্দমাক্ত হয়ে পড়ায় চলার অনুপযোগী হয়ে পরে। যা দেখার কেউ নেই।

জানা গেছে, ৭ নং লতাচাপলী ইউনিয়নের অন্যতম জনবসতিপূর্ণ একটি গ্রাম। দিয়ার আমখোলার শত শত পরিবার বাস করে। শুকনো মৌসুমে তাদের যাতায়াতের জন্য একমাত্র রাস্তা এটি।

দিয়ার আমখোলার এই রাস্তাটি মহিপুর থেকে দূরত্ব কমপক্ষে চার থেকে পাঁচ কিলোমিটার হবে। এই কাচা রাস্তাটির প্রধান যানবাহন হচ্ছে মোটরসাইকেল, অটো ও মাহিন্দ্রা । এই রাস্তার বর্তমানে বেহাল অবস্থার কারণে কোনো মোটরসাইকেল অটো ও মাহিন্দ্রা চলাচল করতে পারছে না। ফলে হাজার মানুষের ভোগান্তির মধ্যে পড়তে হচ্ছে।

দিয়ার আমখোলা গ্রামের মোঃ ইব্রাহিম হাওলাদার বলেন, বর্ষা মৌসুমে এই রাস্তাটি বেহাল অবস্থা হয়ে পড়ে আর শুকনো মৌসুমে এই রাস্তা দিয়ে আমরা হেঁটে কিংবা মোটরসাইকেলে যাতায়াত করি। একটু বৃষ্টি হলেই রাস্তাটি কর্দমাক্ত হয়ে চলার অনুপযোগী হয়ে পরে। আমরা বর্তমান উন্নয়ন বান্ধব সরকারের কাছে আবেদন জানাই অতি দ্রুত রাস্তাটি পেইজ দিয়ে পাকা করে দেয়া হোক।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..
এই পত্রিকার সকল সংবাদ, ছবি ও ভিডিও স্বত্ত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ দৈনিক মাতৃজগত    
কারিগরি সহযোগিতায়ঃ Bangla Webs
banglawebs999991