শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০৭:৫৬ পূর্বাহ্ন
ঘোষনা
রহনপুর স্টেশন পরিদর্শন করলেন রেলপথ সচিব গাইবান্ধা গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় জ্বীনের বাদশা সুমন গ্রেফতার। গাইবান্ধা গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় ১০৩ কেজি গাঁজা বোঝাই গাড়ীসহ মাদককারবারি আটক। টঙ্গীতে বিপুল পরিমান মাদকসহ ৫ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে টঙ্গী পূর্ব থানা পুলিশ।  গাজীপুরের শ্রীপুরে মানসিক ভারসাম্যহীন যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু, স্বজনরা বলছেন বিষপানে মৃত্যু  মুরাদনগরে দুর্গাপূজার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন শারদীয় দুর্গোৎসবকে পরিপূর্ণ রূপ দিতে মন্দির গুলোর প্রস্তুতি প্রায় শেষ। বিশ্বজয়ী হাফেজ সালেহ আহমাদ তাকরীমকে সংবর্ধনা দিলো টাঙ্গাইল জিলার নাগরপুর উপজেলা প্রশাসন। রায়গঞ্জে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শ্রীপুরে যুবককে হত্যা করে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে   গাজীপুরে গাছে ঝুলন্ত মরদেহ, পুলিশের ধারণা হত্যার পর ঝোলানো হয়েছে

গাইবান্ধা সুন্দরগঞ্জ উপজেলার এক মাদক ব্যবসায়ী ১০ বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত

রানা ইস্কান্দার রহমান
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১০ মার্চ, ২০২২
  • ১৭৬ বার পঠিত

গাইবান্ধা জেলা ব্যুরো প্রধানঃ মাদক মামলায় লাজু সরদার নামে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের এক মাদক ব্যবসায়ীর ১০ বছরের সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন বিচারক। এছাড়াও ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড, অনাদায়ে আরও এক বছরের সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। বুধবার (৯ মার্চ) দুপুরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট প্রথম আদালতের বিচারক উপেন্দ্র চন্দ্র দাস আসামীর উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন। দন্ডিত লাজু সরদার সুন্দরগঞ্জ পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের থানা পাড়া মহল্লার মৃত কামাল সরদারের ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, বিগত ২০২০ সালের ২৩ জুন বিকেলে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সুন্দরগঞ্জ থানার তৎকালীন পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বুলবুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে সুন্দরগঞ্জ মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ থেকে ২১ পুড়িয়া হেরোইন ও ১২ পিস ইয়াবাসহ লাজু সরদারকে গ্রেফতার করে। এরপর জিজ্ঞাসাবাদে লাজুর দেয়া তথ্য মতে তার বসতবাড়ি থেকে আরও ৫’শ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে পুলিশ। এঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ২০১৮ এর৩৬(১) এর টেবিল ৮(ক) ও ১০(ক) ধারায় থানায় একটি মামলা দায়ের করে। তদন্ত শেষে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা লাজু সরদারকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। মামলাটি নিষ্পত্তি করতে ৮ পুলিশ ও একজন স্থানীয় ব্যক্তির সাক্ষ্য শেষে আদালত এ রায়ের দিন ধার্য্য করেন।

মামলার রায়ে বলা হয়, ২১ পুড়িয়া হেরোইন উদ্ধার হওয়ায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১৮ এর ৩৬(১) এর টেবিল ৮(ক) ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে ৫ বছর সশ্রম কারাদন্ড ও ৫ হাজার টাকা অর্থদন্ড, অনাদায়ে আরও ৬ মাসের সশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়। এছাড়া ৫১২ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার হওয়ায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১৮ এর ৩৬(১) এর টেবিল ১০(ক) ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে ৫ বছর সশ্রম কারাদন্ড ও ৫ হাজার টাকা অর্থদন্ড, অনাদায়ে আরও ৬ মাসের সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়। উভয় দন্ড একটির অপরটি চলবে বলে রায়ে বলা হয়। এতে দন্ডের পরিমাণ মোট ১০ বছর সশ্রম কারাদন্ড ও দশ হাজার টাকা অর্থদন্ড, অনাদায়ে আরও এক বছরের সশ্রম কারাদন্ড।

মামলার এপিপি আইয়ুব হোসেন চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, দীর্ঘ শুনানি ও সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে বিচারক দু’টি ধারায় আসামীর ১০ বছর সশ্রম কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদন্ড প্রদান করেন। কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক বুলবুল ইসলাম জানান, দন্ডপ্রাপ্ত আসামী লাজু সরদারের নামে এই মামলা ছাড়াও আরও ৬ টি মাদক মামলা রয়েছে।

মাদক মামলায় লাজু সরদার নামে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের এক মাদক ব্যবসায়ীর ১০ বছরের সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন বিচারক। এছাড়াও ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড, অনাদায়ে আরও এক বছরের সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। বুধবার (৯ মার্চ) দুপুরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট প্রথম আদালতের বিচারক উপেন্দ্র চন্দ্র দাস আসামীর উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন। দন্ডিত লাজু সরদার সুন্দরগঞ্জ পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের থানা পাড়া মহল্লার মৃত কামাল সরদারের ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, বিগত ২০২০ সালের ২৩ জুন বিকেলে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সুন্দরগঞ্জ থানার তৎকালীন পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বুলবুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে সুন্দরগঞ্জ মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ থেকে ২১ পুড়িয়া হেরোইন ও ১২ পিস ইয়াবাসহ লাজু সরদারকে গ্রেফতার করে। এরপর জিজ্ঞাসাবাদে লাজুর দেয়া তথ্য মতে তার বসতবাড়ি থেকে আরও ৫’শ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে পুলিশ। এঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ২০১৮ এর৩৬(১) এর টেবিল ৮(ক) ও ১০(ক) ধারায় থানায় একটি মামলা দায়ের করে। তদন্ত শেষে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা লাজু সরদারকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। মামলাটি নিষ্পত্তি করতে ৮ পুলিশ ও একজন স্থানীয় ব্যক্তির সাক্ষ্য শেষে আদালত এ রায়ের দিন ধার্য্য করেন।

মামলার রায়ে বলা হয়, ২১ পুড়িয়া হেরোইন উদ্ধার হওয়ায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১৮ এর ৩৬(১) এর টেবিল ৮(ক) ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে ৫ বছর সশ্রম কারাদন্ড ও ৫ হাজার টাকা অর্থদন্ড, অনাদায়ে আরও ৬ মাসের সশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়। এছাড়া ৫১২ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার হওয়ায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১৮ এর ৩৬(১) এর টেবিল ১০(ক) ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে ৫ বছর সশ্রম কারাদন্ড ও ৫ হাজার টাকা অর্থদন্ড, অনাদায়ে আরও ৬ মাসের সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়। উভয় দন্ড একটির অপরটি চলবে বলে রায়ে বলা হয়। এতে দন্ডের পরিমাণ মোট ১০ বছর সশ্রম কারাদন্ড ও দশ হাজার টাকা অর্থদন্ড, অনাদায়ে আরও এক বছরের সশ্রম কারাদন্ড।

মামলার এপিপি আইয়ুব হোসেন চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, দীর্ঘ শুনানি ও সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে বিচারক দু’টি ধারায় আসামীর ১০ বছর সশ্রম কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদন্ড প্রদান করেন। কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক বুলবুল ইসলাম জানান, দন্ডপ্রাপ্ত আসামী লাজু সরদারের নামে এই মামলা ছাড়াও আরও ৬ টি মাদক মামলা রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..
এই পত্রিকার সকল সংবাদ, ছবি ও ভিডিও স্বত্ত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ দৈনিক মাতৃজগত    
কারিগরি সহযোগিতায়ঃ Bangla Webs
banglawebs999991