সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১১:৪৪ পূর্বাহ্ন
ঘোষনা
গাইবান্ধা ফুলছড়িত উপজেলায় নিখোঁজ ধান ব্যবসায়ী সোলায়মানের সন্ধানে স্বজনদের সংবাদ সম্মেলন। গোদাগাড়ীতে ১০ বোতল ফেন্সিডিল সহ ০১ জন আসামী গ্রেফতার । সাতক্ষীরার আশাশুনিতে ট্রাকের ধাক্কায় গৃহবধূ নিহত গাজীপুরের শ্রীপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১ নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁয়ে হাতুড়ী দিয়ে পিটিয়ে স্ত্রীকে খুন করলো স্বামী । প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরের টিন ও কাঠ,দরজা চুরি হয়ে যাওয়া মালামালসহ ২ জন গ্রেফতার গাইবান্ধার পাঁচ সাংবাদিককে অকথ্য ভাষায় গালাগালা ও হুমকির ঘটনায় সাধারণ ডায়েরির (জিডি) তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে পুলিশ। গাইবান্ধায় ট্রাকের ধাক্কায় অটোরিকশা যাত্রীর মৃত্যু। গাজীপুরের কালিয়াকৈরে চালককে হত্যার পর অটোরিকশা ছিনতাই গোদাগাড়ীতে সন্ত্রাসী কায়দায় দোকান ও কম্পিউটার ও আসবাবপত্র ভাঙচুর করে শিক্ষা বোর্ডে কর্মরত বকুল বাহিনী

হাতীবান্ধায় বাঁশ কাটায় ইউপি চেয়ারম্যানকে মারধর

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১ এপ্রিল, ২০২২
  • ১২১ বার পঠিত

মিনহাজুল হক বাপ্পী লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার কেতকীবাড়ি এলাকায় নওদাবাস ইউপি চেয়ারম্যান ফজলুল হককে মারধরের অভিযোগ উঠেছে জাহেদুল ইসলাম গংদের বিরুদ্ধে। তবে জাহেদুল ইসলাম দাবি করেন, চেয়ারম্যান ও তার লোকজন তাদের মারধর করে তাদের অসংখ্য বাঁশ কেটে ফেলেছে।

বৃহস্পতিবার (৩১ মার্চ) রাতে এ ঘটনায় ঐ ইউপি চেয়ারম্যানের ছোট ভাই মায়ানুর রহমান পলাশ বাদী হয়ে জাহিদুল ইসলামকে প্রধান আসামি করে ৯ জনের নামে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অপরদিকে জাহেদুলের স্ত্রী নুরজাহান বেগম বাদী হয়ে বুধবার রাতে নওদাবাস ইউপি চেয়ারম্যান ফজলুল হকসহ ২০ জনের নামে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।
এর আগে, বুধবার (৩০ মার্চ) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে হাতীবান্ধা উপজেলার কেতকীবাড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

অভিযোগে বলা হয়, ঝড়ে নওদাবাস ইউপি চেয়ারম্যান ফজলুল হকের একটি বাঁশঝাড় নিচে পড়ে যায়। ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম নামে এক ব্যক্তিকে বাঁশ কাটতে বলেন। গত বুধবার সকালে রবিউল ইসলাম বাঁশ কাটতে দেখলে পূর্ব দিক থেকে জমির সীমানা নিয়ে বিরোধের জের ধরে আসামিরা পূর্ব পরিকল্পিত দল গঠন করে বাঁশের লাঠি, লোহার রড ও ধারালো লাঠি নিয়ে রবিউল ইসলামকে কাটতে নিষেধ করে। বাঁশ
রবিউল ইসলাম বাঁশ না কাটার বিষয়টি ইউপি চেয়ারম্যানকে জানান। ইউপি চেয়ারম্যান তাকে নিয়ে বাঁশঝাড়ের কাছে গিয়ে বিবাদীদের চলে যেতে বললে তারা ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে তর্কাতর্কি শুরু করে এবং চেয়ারম্যানকে ধাক্কা ও মারধর করে। ফজলুল হকের বাম হাত ফুলে ও আহত হয়।

এদিকে ইউপি চেয়ারম্যানের ছোট ভাই মায়ানুর রহমান পলাশ তার ভাতিজা আরমান (২৬) কে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে তার ঠিকাদারি কাজ কিনতে রংপুর যাচ্ছিলেন। একপর্যায়ে আসামি নুর মোহাম্মদ (নিরব) জোরপূর্বক পঁচাত্তর হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়।

স্থানীয়রা ঘটনাস্থলে গিয়ে ঠিকাদার মায়ানুর রহমান পলাশ ও তার ভাতিজা আরমানকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। রেজি নং ৪৩৮৭/৪০ ও ৪৩৯৮/৫১।

বিবাদী জাহিদুল ইসলাম জানান, চেয়ারম্যান ফজলুল হকসহ তার লোকজন আমার কেনা ৪ শতক জমির বাঁশ কাটতে আসে। আমি বাধা দিতে গেলে তারা আমাকে ও আমার স্ত্রী সান্তাকে মারধর করে, গুরুতর জখম করে এবং সব বাঁশ কেটে নেয়।
পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে ও পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

হাতীবান্ধা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এরশাদুল আলম বলেন, এ ব্যাপারে দুটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..
এই পত্রিকার সকল সংবাদ, ছবি ও ভিডিও স্বত্ত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ দৈনিক মাতৃজগত    
কারিগরি সহযোগিতায়ঃ Bangla Webs
banglawebs999991