মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ১২:১৩ পূর্বাহ্ন
ঘোষনা
নবীনগরে পচা মাংস বিক্রির অভিযোগে কসাইকে কারাদণ্ড পাথরঘাটায় নাক-চোঁখ বিহীন দাঁত নিয়ে অস্বাভাবিক ১ শিশুর জন্ম গাজীপুরে স্বামীকে আটকে রেখে স্ত্রীকে গণধর্ষণ গাইবান্ধা সাদুল্লাপর উপজেলা তিন ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ স্থগিত হওয়ার প্রতিবাদে বিক্ষোভ ও অবস্থান ধর্মঘাট অনুষ্ঠিত হয়। গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তরের পৃথক দুটি অভিযানে ৩০হাজার টাকা জরিমানা টানা ৭২ ঘন্টা বিশ্রামহীন প্রচেষ্টাও ঘুম বাদ দিয়ে অবশেষে শেষ হাসি হাসলেন ঢাকার নিউমার্কেট থানার এসআই রায়হান। জুঁইদন্ডী ইউনিয়নের বিভিন্ন সড়কের শুভ উদ্বোধন চেয়ারম্যান মাষ্টার মুহাম্মদ ইদ্রিচ ঢাকার কেরানীগঞ্জে অবৈধ গ্যাস সংযোগ নৈপথ্যের নায়ক কে এই সিরাজ? গাইবান্ধা গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় ৮কেজি গাঁজা সহ ১ মাদক ব্যবসায়ী আটক। রামগতি উপজেলার চর আলগী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কমিটি গঠন।

কসবায় দেশের সব চেয়ে বড় আশ্রয়ন প্রকল্প নির্মানাধীন

হেবজুল বাহার
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২২
  • ৬১ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টারঃ
ব্রাহ্মণবাড়িয়া কসবায় হচ্ছে দেশের সবচেয়ে বড় আশ্রয়ণ প্রকল্পকসবা উপজেলার মনকাশাইর এলাকার আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পে ১২ দশমিক ৩৫ একর জায়গায় লাল-সবুজ রঙের ৪০০টি ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। এই প্রকল্পে একসঙ্গে কাজ করছেন ৩ শ’ শ্রমিক। প্রতিটি ঘর দুই শতাংশ জমির উপর নির্মিত। গ্রামীণ পরিবেশের এই জায়গায় ঘরের পাশাপাশি আরো রয়েছে বিদ্যালয়, মসজিদ, খেলার মাঠ, পুকুর, মন্দির, বাজার ও কবরস্থান। সামাজিক সুবিধার যা যা প্রয়োজন সবই এখানে রাখা হয়েছে। তাই এক জায়গায় মিলবে সব সুবিধা। এটিই দেশের বৃহত্তম আশ্রয়ণ প্রকল্প, যেখানে প্রতিটি ঘর নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে ২ লাখ ৫৯ হাজার ৫০০ হাজার।

কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের পাশে অবস্থিত দেশের সবচেয়ে বড় এই আশ্রয়ণ প্রকল্পের নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে ১০ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। আগামী জুলাই মাসের মধ্যে প্রকল্পের শেষ হবে এবং ভূমিহীনদের ঘরে তোলা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এই প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন।

জেলা ও উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, কসবা উপজেলার খাড়েরা ইউনিয়নের মনকাশাইর মৌজায় দেশের অন্যতম বৃহৎ আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় একসঙ্গে ৪০০ ঘর নির্মাণের কাজ বাস্তবায়িত হচ্ছে। কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের পাশে ১২ দশমিক ৩৫ একর খাস ভূমিতে এই প্রকল্পের কাজ দ্রুত গতিতেই চলছে। প্রকল্পের প্রায় ৭০ শতাংশ কাজ ইতোমধ‌্যে শেষ হয়েছে। প্রতিটি পরিবার পাবে দুই শতক ভূমি ও একটি আধা পাকা ঘর। সেখানে একটি বারান্দা, দুটি শোবার কক্ষ, একটি রান্নাঘর ও একটি শৌচাগার রয়েছে। প্রতি ১০ পরিবারের জন্য একটি নলকূপের পাশাপাশি বিদ্যুতের সুবিধা রয়েছে। মহাসড়কের পাশে হওয়ায় প্রকল্পের একাধিক রাস্তাও তৈরি করা হচ্ছে।

জানা গেছে, আশ্রয়ণ প্রকল্পের ভেতরে গৃহ ছাড়াও পাঁচ হাজার ৯৬৪ বর্গফুট জায়গায় পুকুর, ৩ হাজার বর্গফুট জায়গায় মন্দির, ৬ হাজার ৪৮৫ বর্গফুট জায়গায় খেলার মাঠ, ৩ হাজার ৪৫ বর্গফুট জায়গায় মসজিদ ও ৩ হাজার ৪৯৪ বর্গফুট জায়গায় বিদ্যালয় নির্মাণ করা হবে। ৪০০ গৃহের মধ্যে ৫০টি ঘরে লাল রঙ এবং ৩৫০টি ঘরে সবুজ রঙের টিনা লাগানো হবে। রাস্তা ও নালা নির্মাণসহ বনায়নের ব‌্যবস্থাও রয়েছে।

এদিকে শনিবার (৯ এপ্রিল) দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব তোফাজ্জল হোসেন মিয়া পরিদর্শনে আসেন। এসময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ রয়েছে এই আশ্রয়ণে যারা থাকবে তাদের বিভিন্ন সরকারি বিভাগের পক্ষ থেকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। পাশাপাশি তাদের জন্য সরকারি ঋণ সুবিধার ব্যবস্থাও করা হবে।

এ ছাড়াও তিনি কাজের মান নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, দেশের বৃহৎ প্রকল্প হওয়ায় এর মান ধরে রাখতে নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করা হবে।

পরিদর্শনকালে সচিবের সাথে উপস্থিত ছিলেন মহাপরিচালক (প্রশাসন) আহসান কিবরিয়া, আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের পরিচালক (যুগ্ম সচিব) আবু ছালেহ মোহাম্মদ ফেরদৌস খান, চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার আশরাফ উদ্দিন ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..
এই পত্রিকার সকল সংবাদ, ছবি ও ভিডিও স্বত্ত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ দৈনিক মাতৃজগত    
কারিগরি সহযোগিতায়ঃ Bangla Webs
banglawebs999991